তালাক নিবন্ধন বা রেজিস্টার

তালাক দেওয়ার পর সংশ্লিষ্ট নিকাহ ও তালাক রেজিস্টারের কাছে তালাক নিবন্ধন ( Divorce Register ) করতে হয়। তালাক নিবন্ধনের বা রেজিস্টার করার জন্যে বাংলাদেশ সরকারের নির্ধারিত তালাক ফরম আছে। তবে তালাকের প্রকারভেদ অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন তালাক ফরম রয়েছে।

তালাক নিবন্ধনে যা যা উল্লেখ করতে হয়

  • স্বামীর নাম ও তার পিতার নাম এবং ঠিকানা
  • স্ত্রীর নাম ও তার পিতার নাম এবং ঠিকানা
  • তালাকের তারিখ
  • কোন প্রকারের তালাক তা উল্লেখ করতে হয়
  • যে স্থানে তালাক প্রদান করা হয়েছে সেখানের জেলা ও থানা, গ্রাম/ নগরের নাম
  • যে ব্যক্তির ঘরে তালাক হয়েছে তার নাম ও তার পিতার নাম
  • তালাকের সাক্ষীদের নাম, পিতার নাম ও ঠিকানা
  • যে ব্যক্তি স্বামী/স্ত্রী -কে সনাক্ত করেছে তার নাম, পিতার নাম ও ঠিকানা
  • রেজিস্টার করার তারিখ
  • তালাক দাতার স্বাক্ষর ও সাক্ষীগণের স্বাক্ষর এবং রেজিস্টার কারীর স্বাক্ষর
  • এছাড়াও ফরমভেদে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করতে হয়।
তালাক নিবন্ধন বা রেজিস্টার ফরম

বাংলাদেশের তালাক আইন অনুযায়ী তালাক দেওয়ার পর প্রথমে সংশ্লিষ্ট নিকাহ ও তালাক রেজিস্টারের কাছে তালাক নিবন্ধন ফরমে তালাক নিবন্ধন বা রেজিস্টার করতে হয়। পরে তালাক প্রদানকারীকে তালাকের নোটিশ পাঠাতে হয়। এরপর তালাকের এফিডেভিট বা হলফনামা করতে হয়। তালাক নিবন্ধন করতে হলে সংশ্লিষ্ট নিকাহ ও তালাক রেজিস্টার বা কাজী অফিসে নির্ধারিত নিবন্ধন ফি পরিশোধ করতে হবে।

2 thoughts on “তালাক নিবন্ধন বা রেজিস্টার”

    1. সাধারণত তালাক দেওয়া কোনো ভালো কাজ নয়। প্রয়োজনে উভয় পক্ষের অবিভাবকের মাধ্যমে মিমাংশা করে নিন। যদি একান্তই সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা না যায় তাহলে তালাক দেওয়ার জন্য নিকটস্ত কাজী অফিসে যোগাযোগ করুন। তালাকের নোটিশ প্রদান,
      কখন তালাক কার্যকর হবে

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *