কিভাবে তায়াম্মুম করতে হয়

আজ আমরা জানবো তায়াম্মুম অর্থ কি , তায়াম্মুমের উপকরণ , তায়াম্মুমের মাসায়েল , তৈয়ম করার নিয়ম , তায়াম্মুম কখন করতে হয় ইত্যাদি।

তায়াম্মুম শব্দটি আরবি। তায়াম্মুম শব্দের অর্থ হলো ইচ্ছে করা। ইংরেজীতে বলা যায় Wish to attain holiness. মাটি বা মাটি জাতীয় দ্রব্য দিয়ে ইসলামের নির্দেষ্ট নিয়ম অনুযায়ী পবিত্রতা অর্জনের ইচ্ছাকে তায়াম্মুম বলে। তবে যখন পানি পাওয়া যায় না অথবা পানি পাওয়া গেলেও অসুস্থ থাকার কারণে পানি ব্যবহার করা যায় না তখন নামায বা পবিত্রতা অর্জনের জন্যে তায়াম্মুম করতে হয়। আমরা তায়াম্মুম সম্পর্কে যা জানবো তাহলো-

  1. তায়াম্মুম করার সঠিক নিয়ম
  2. তায়াম্মুমের নিয়ত
  3. কোন অবস্থায় তায়াম্মুম করা বৈধ
  4. কি দিয়ে তায়াম্মুম করতে হয়
  5. তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি
  6. তায়াম্মুমের সুন্নাত কি কি
  7. তায়াম্মুম ভঙ্গের কারণ কি

তায়াম্মুম করার সঠিক নিয়ম

তায়াম্মুমের মাসায়েল : তায়াম্মুম করার সঠিক নিয়ম বা পদ্ধতি রয়েছে। তায়াম্মুম করার জন্যে এই নিয়মগুলো ক্রমানুসারে অনুসরণ করতে হবে। kivabe Tayammum korte hobe

  1. তায়াম্মুম করতে হলে প্রথমেই নিয়ত করতে হবে।
  2. বিসমিল্লাহ পড়তে হবে।
  3. পবিত্র মাটি বা মাটি জাতীয় দ্রব্যের উপর উভয় হাত(হাতের তালু) রেখে হাতকে সামনে ও পিছনে একবার টান দিতে হবে।
  4. এরপর উভয় হাতকে একসাথে করে ঝাড়া দিতে হবে যেন হাতের অতিরিক্ত ধুলা পড়ে যায়।
  5. অতঃপর উভয় হাত দিয়ে সমস্ত মুখমণ্ডল একবার মাসেহ করতে হবে।
  6. আবার উভয় হাতকে আগের মতো মাটিতে রেখে সমনে ও পিছনে টান দিয়ে ঝেড়ে ফেলতে হবে।
  7. এরপর প্রথমে ডানহাত দিয়ে বামহাতের কনুই পর্যন্ত মাসেহ করতে হবে পরে বামহাত দিয়ে ডানহাতের কনুই পর্যন্ত মাসেহ করতে হবে।

মুখ ও দুই হাত এমনভাবে মাসেহ করতে হবে যেন বিন্দু পরিমাণ জায়গাও বাদ না পড়ে। তৈয়ম করার নিয়ম মেনে তায়াম্মুম করতে হবে।

তায়াম্মুমের নিয়ত

তায়াম্মুম করতে প্রথমেই নিয়ত করতে হবে। তায়াম্মুমের নিয়ত হলো-” নাওয়াইতু আন আতায়াম্মামা লির যয়ীল হদছি, ওয়াইসতিবাহাতাল লিছ ছালাতি। ওয়া তাকারুবান ইলাল্লাহি তায়ালা। “ এখন কেউ যদি আরবি নিয়ত না পারে তবে মনে মনে পবিত্রতা অর্জনের নিয়ত রাখবে। অথবা ইহা পড়তে পারে যে- ” আমি বড় ও ছোট নাপাক দূর করার জন্য ও নামায বৈধ হওয়ার জন্য এবং আল্লাহর নৈকট্য লাভের জন্য তায়াম্মুমের নিয়ত করছি”। Tayammumer niyat evabe banglate kora zabe

কোন অবস্থায় তায়াম্মুম করা বৈধ

তায়াম্মুম কখন করতে হয় :

  • ১ মাইলের মধ্যে পানি না পাওয়া গেলে।
  • পানি পাওয়া গেলেও যদি পানির স্থানে ভয়ংকর প্রাণী বা শত্রুর আঘাতের সম্ভাবনা থাকে।
  • অসুস্থ অবস্থায় পানি ব্যবহার করা না গেলে অথবা করলে রোগ বৃদ্ধি বা কোন সমস্যার সম্ভাবনা থাকলে।
  • পানি কিনতে পাওয়া গেলেও কেনার মত পয়সা না থাকলে তায়াম্মুম করা যাবে।
  • যানবাহনে থাকা অবস্থায় যদি পানি না পাওয়া যায়। অথবা পানি খুঁজতে গেলে গাড়ি ছেড়ে দেওয়ার ভয় থাকে তখন তায়াম্মুম করে নেওয়া বৈধ হবে।

কি দিয়ে তায়াম্মুম করতে হয়

তায়াম্মুমের উপকরণ : তায়াম্মুম করার জন্যে পবিত্র মাটি বা মাটি জাতীয় দ্রব্যের ব্যবহার করতে হবে। যেমন- শুকনা মাটি, বালু-ধুলা, পাথর, কংকর, ইট ইত্যাদি। তবে কাঠ, লৌহ, পিতল, কাপড় ইত্যাদির উপর যদি ধুলা-বালি জমে এবং তাতে হাত রাখলে হাতে ধুলা লাগে তাহলে তা দিয়ে তায়াম্মুম করা যাবে।

তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি

তায়াম্মুমের ফরজ ৩ টি। যথা- ১. নিয়ত করা। ২. সমস্ত মুখমণ্ডল মাসেহ করা। ৩. উভয় হাতের কনুই সহ মাসেহ করা। তায়াম্মুম করার জন্য এই তিনটি ফরজ যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। Tayammumer foroz

তায়াম্মুমের সুন্নাত কি কি

  • তায়াম্মুমের শুরুতে বিসমিল্লাহ পড়া।
  • উভয় হাতের তালু মাটিতে রেখে সামনে ও পিছনে একবার টানা সুন্নাত।
  • মাটিতে হাত রাখার সময় আঙ্গুল একটু ফাঁকা রাখা।
  • মাটি থেকে হাত উঠানোর সময় হাত ঝাঁড়া দেওয়া।
  • প্রথমে মুখ ও পরে উভয় হাত মাসেহ করা।
  • মুখ ও উভয় হাত মাসেহ করার মাঝে দেরী না করা সুন্নাত।

তায়াম্মুম ভঙ্গের কারণ কি

  • যেসকল কারণে অজু ভঙ্গ হয় সে সকল কারণে তায়াম্মুম ভেঙ্গে যায়।
  • যেসকল কারণে গোসল ফরজ হয় সে সকল কারণে তায়াম্মুম ভেঙ্গে যায়।
  • পানি পাওয়া গেলে তায়াম্মুম ভেঙ্গে যায়।
  • পানি ব্যবহারের অক্ষমতা চলে গেলে তায়াম্মুম ভেঙ্গে যায়।

অজু ও গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করতে হয়। ফরজ গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করে পবিত্রতা অর্জন করা যায়। তবে যদি তায়াম্মুম করার শর্ত সৃষ্টি হয় তখনি অজু ও গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করা যাবে। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সঠিক নিয়মে তায়াম্মুম করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *